Breaking News

রাজ্যের প্রথম ১০০ শতাংশ ভ্যাকসিনেটেড হতে চলেছে নানুরের পাপুড়িতে

 

টুডে নিউজ সার্ভিস, নানুরঃ রাজ্যে নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত। ভ্যাকসিন দেওয়া নিয়ে ইতিহাস গড়তে চলছে বীরভূমের গ্রাম। পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে প্রথম ১০০ শতাংশ ভ্যাকসিনেটেড হতে চলেছে নানুরের চারকলগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের পাপুড়ি গ্রাম। আর এই অভিনব কর্মকাণ্ডের কাণ্ডারী জননেতা কাজল শেখ। এই পঞ্চায়েতের অন্তর্গত পাপুড়ি গ্রামে ১৮ বছরের উর্ধে সমস্ত নাগরিকের কোভিড ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা হয়েছে৷ ইতিমধ্যে ৯০ শতাংশ মানুষজনের ভ্যাকসিন নেওয়া হয়ে গিয়েছে। আর ১০ শতাংশ মানুষের ভ্যাকসিন এই সপ্তাহেই হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতা কাজল শেখ৷ 

১০০ শতাংশ ভ্যাকসিন দেওয়া সম্পন্ন হয়ে গেলে এই গ্রামে ঢোকার অন্যতম দুটি মুখে স্যানিটাইজ টার্নেল বসানো হবে৷ যাতে এই গ্রাম কোভিড ভাইরাস থেকে পূর্ণাঙ্গ সুরক্ষিত হয়। 

প্রসঙ্গত, এই গ্রামের বেশ কয়েকজন মানুষ এখনও কর্মসূত্রে গ্রামে নেই৷ তাদেরও গ্রামে এনে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। এমনকি, যারা বাইরে থেকে আসবেন তাদের ১৪ দিন আইসোলেশন রাখার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। স্থানীয় নেতা কাজল শেখ প্রত্যেকে বাড়ি থেকে ভ্যাকসিন শিবির পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। মূলত তাঁরই উদ্যোগে নতুন পালক পেতে চলেছে নানুরের এই পাপুড়ি গ্রাম। এই কাজের জন্য চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সাধুবাদ জানিয়েছেন সকল স্তরের মানুষজন। পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য ভবনের উদ্যোগে ও কাজল শেখের অক্লান্ত সহযোগিতায় এই কাজ সম্পন্ন হয়েছে, এমনটা কয়েক মাস ধরে দেখে আসছেন গ্রামবাসীরা।

উল্লেখ্য, করোনা আবহে ২০২০ সালে লকডাউনের প্রথম থেকে দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা গিয়েছিল এই নেতাকেই৷ মানুষজনের খাদ্য সংকট মেটাতে বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রীর বাজার খুলে ছিলেন কাজল শেখ৷ সেই বাজারের জন্য পাপুড়ি সহ আসেপাশে গ্রামের মানুষজন কর্মহীন হয়ে পরেও অনাহারে দিন কাটাতে হয়নি। এবারও তাঁরই অনবদ্য উদ্যোগে যথারীতি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হয়েছে। এছাড়াও, বিনামূল্যে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ করেছেন তিনি৷ এতে উপকৃত হয়েছেন হাজার খানেক মানুষ।

About Burdwan Today

Check Also

জলের দাবিতে রাজ্য সড়ক অপরাধ করে বিক্ষোভ মহিলাদের

দেবনাথ মোদক, বাঁকুড়াঃ বাঁকুড়ার শালতোড়া ব্লকের সাতদেউলী গ্রামের মহিলারা শনিবার পানীয় জলের দাবিতে শালতোড়া-মেজিয়া রাজ্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *