টুডে নিউজ সার্ভিস, বর্ধমানঃ
স্থানীয় তৃণমূল নেতা সেখ ফিরোজের সহযোগীতা পৈতৃক সম্পত্তি হাতানোর অভিযোগ উঠলো কাকাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে। প্রশাসনের উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের জানিয়ে ও কোনো লাভ হয়নি, বল জানান ঐ অসহায় মহিলা। পৈতৃক সম্পত্তিতে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেতে অবশেষে মন্ত্রীর দারস্থ মা,মেয়ে।

বর্ধমান পৌরসভার খাগড়াগড় মসজিদ তলা পূর্বপাড়া এলাকার বাসিন্দা মিলি খাতুন বর্ধমান কোর্ট কম্পাউন্ড এলাকার হকার্স মার্কেটের শিড়ির তলায় বসে কান্না ভেজা চোখে বলেন দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে সম্পত্তির বিবাদে জর্জরিত। কয়েক বছর আগে পৈতৃক সম্পত্তি ছাড়ার হুমকি দেন কাকা। কাকার মৃত্যুর পর কাকাতো ভাই স্থানীয় তৃণমূল নেতার সেখ ফিরোজের  সহযোগিতায় জোরপূর্বক আমাদের ঘর থেকে বের করে সম্পত্তির দখল নিতে চায়। এই বিষয়ে স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের জানান হয়। জানানো হয় প্রশাসনকেও। তাতেও কোনো লাভ হয়নি। অবশেষে স্থানীয় তৃণমূল নেতারা মিটিং করে জানায় জায়গায় পরিবর্তে এই অসহায় পরিবারকে দেওয়া হবে ৫ লক্ষ টাকা। একটু শান্তি পেতে তাতেই রাজি হন অসহায় পরিবার। 

এরপরেও দীর্ঘ কয়েক মাস কেটে গেলও টাকা দিতে চাইছেন না কাকাতো ভাই। টাকা পয়সা না দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দিলো কাকাতো ভাই। বর্ধমান দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক খোকন দাসকে বিষয়টি জানানো হয়।  শনিবার মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ-কে বিষয়টি জানানো হয়। স্বপন দেবনাথ, বিষয়টি বিধায়ক খোকন দাসকে দেখার নির্দেশ দেন। মিলি খাতুন আরও বলেন গত বছর লকডাউনের সময় বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চত্বরে রাত কাটিয়েছি। বর্তমানে সবকিছু হারিয়ে এখন মা,মেয়ে মিলে রাত কাটাতে হচ্ছে বর্ধমান সার্কাস মার্কেটের সিঁড়িতে। পৈতৃক সম্পত্তি এক টুকরো ঘরে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেতে পেটের তাগিদে রাস্তায় রাস্তায় এখন মা ও মেয়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here