বিশ্বজিৎ বিশ্বাস, নদীয়াঃ করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় এক ব্যক্তির এরপরই আত্মহত্যা করেন পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। এমন মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে কল্যাণী পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের বুদ্ধ পার্ক এলাকায়। ওই মৃত ব্যক্তির দেহ সৎকার করে শ্মশানযাত্রীরা তার বাড়িতে ফিরে তারা দেখতে পান ঘরের মধ্যে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছেন তার স্ত্রী ও কন্যা। গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন তারা। এরপরই পুলিশ তাদের দেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। মৃত ব্যক্তিদের নাম বাবুল দাস মেয়ের স্বাগতা দাস ও স্ত্রী দীপা দাস। ওই বাড়িতে তারা তিনজনই বসবাস করতেন।

সূত্রের খবর, বাবুল দাস কয়েকদিন আগে করোনায় আক্রান্ত হন। রবিবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয় বলে জানা যায়।এরপর এলাকার মানুষ ও প্রশাসনের উদ্যোগে বাবুল দাসের মৃতদেহ উদ্ধার করে সৎকারের জন্য নিয়ে যায়।তখন বাড়িতে ছিল বাবুলের ২৭ বছরের কন্যা স্বাগতা দাস ও স্ত্রী দীপা দাস। ডোম যখন বাড়ি থেকে বাবুল দাসের মৃত দেহ নিয়ে যায় তখন যাবার সময় তার বাবার সৎকার যেন ভালো ভাবে সম্পন্ন হয় তার অনুরোধ করেন মেয়ে স্বাগতা। এরপরই তার দেহ সৎকার করে বাড়ি ফেরার পর তারা দেখতে পান একই ঘরের মধ্যে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে মা ও মেয়ে। মৃতদেহ উদ্ধার করে কি কারনে আত্মহত্যা করেছে তদন্ত শুরু করেছে কল্যাণী থানা পুলিশ।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here