নিখিল কর্মকার, নদীয়াঃ নদীয়ার শান্তিপুর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে করোনা প্রতিষেধকের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার অপেক্ষায় ১২ ঘণ্টা আগে থেকে লাইনে বৃদ্ধ-বৃদ্ধা ও তাদের পরিবার। বেশ কয়েকদিন প্রতীক্ষার পর অবশেষে গতকাল বিকালে যখন, হাসপাতাল গেটে নোটিশ পড়লো,  ৮ মে শনিবার সকাল ১০ টা থেকে দেওয়া হবে করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার কথা ৪৩ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে। অথচ অনেকেরই পার হয়ে গেছে ৫০ দিন, কারও বা ৬০ দিন ছুঁই ছুঁই! তাই পেছনের আর কোনও জায়গা নেই।  এদিন ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা জানাজানি হতেই, রাতের খাওয়া-দাওয়া তাড়াতাড়ি সেরে অনেকেই হাসপাতাল গেটে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। রাত্রি ১২টা পর্যন্ত সময়ের মধ্যেই চলে এসেছেন প্রায় দেড়শ জনের কাছাকাছি! এরপরে তো সকাল পড়েই থাকলো! মাত্র ৪০ টি প্রতিষেধক বাকি থাকলো। নাম লিখিয়ে লাইন দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের না থাকলেও  দীর্ঘক্ষন লাইনে দাঁড়ানো নিজেদের মধ্যে পালা করে, বিশ্রাম এবং খাওয়া-দাওয়ার ছুটি ভাগ করে নিয়েছেন।

 দ্বিতীয় ডোজ পেতেই এই অবস্থা! প্রথম ডোজের কথা তো ভাবতে পারছেন না অনেকে! যদিও  অতি অল্প সংখ্যক হলেও প্রাথমিকের আশায় কিছু মানুষ দ্বিতীয় লাইনের মধ্যেই দাঁড়িয়েছেন। অনেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে আফসোস করলেন, এর আগে এত ভিড় ছিল না, তখনই যদি নিয়ে যেতাম ভালো হতো। ৪৫ ঊর্ধ্বে প্রথম ডোজ পেতেই চোখের জলে নাকের জলে অবস্থা সাধারণ মানুষের। তবে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, কবে প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন তার প্রত্যেকের তথ্যই রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে, সেই অনুযায়ী অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার কাজ সম্পন্ন হলে তবেই নতুনদের কথা ভাবার ফুরসৎ মিলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here