ঝিলিক দাস, বীরভূমঃ  বীরভূম জেলা পুলিশের নতুন উদ্যোগে শুরু হলো ” উড়ান “। বীরভূমের বীর পুত্র সেনাবাহিনীতে কর্মরত রাজেশ ওরাং শহীদ হয়। দেশের বীর শহীদের স্মৃতিতে এই প্রয়াস শুরু হচ্ছে। বীরভূম জেলা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আদিবাসী ছেলেমেয়েদের সরকারি চাকুরীতে আরও বেশি নিয়োগ পেতে পারে তার জন্য তাদেরকে অবৈতনিক ভাবে জেলা পুলিশের তরফে বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে থাকবে কম্পিউটার, যেকোনো রকম সরকারী পরীক্ষার পড়াশোনা করানোর ব্যবস্থা, পাশাপাশি সুস্থ শরীরের অধিকারী হওয়ার জন্য আদিবাসী ছেলেমেয়েদের দেওয়া হবে শারীরিক প্রশিক্ষণ। বীরভূমের পুলিশ সুপার নগেন্দ্র নাথ ত্রিপাঠী জানিয়েছেন, গতবছর লাদাখের ভারত – চীন সীমান্তের গালোয়ান প্রদেশে দেশ রক্ষায় প্রান ত্যাগ করেন বীরভূমের তরতাজা যুবক রাজেশ ওরাং। আদিবাসী সমাজের যুবকদেরকে চাকরি মুখী করে তুলতে শহীদ রাজেশ ওরাং এর সাহসিকতার দৃষ্টান্তই আগামীতে সকল যুবক যুবতীকে দেশের হয়ে মানুষের প্রান বাঁচতে উদবুদ্ধ করবে। ছেলের স্মৃতির উদ্দেশ্যে এই ধরনের একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হচ্ছে শুনে জেলা পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বীরপুত্র  শহীদ রাজেশ ওরাং-এর মা মমতা ওরাং।

   আদিবাসী গাঁওতার নেতা রবীন সোরেন বলেন, বীরভূম জেলা পুলিশ যে কাজ করেছে তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আদিবাসী মানুষদের জন্য যেভাবে ভাবছেন তার জন্য ওনাকেও আন্তরিকভাবে জানাই জোহার। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রামপুরহাটে তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক আসিস বন্দোপাধ্যায় তথা বিধানসভার ডেপুটি স্পীকার , বীরভূমের পুলিশ সুপার নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী, সহ একাধিক প্রশানিক আধিকারিক বৃন্দ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here